শিরোনাম :
প্রচ্ছদ / অন্যান্য / ঈমান ও আক্বীদাহ

ঈমান ও আক্বীদাহ

শুধু পাঁচ তোলা স্বর্ণ ও ব্যবহৃত কাপড় থাকলে কুরবানী ওয়াজিব হবে কী?

আসসালামু ‘আলাইকুম হযরত মুফতী সাহেব দাঃবাঃ প্রশ্ন: একজন মহিলার পাঁচ তোলা সোনা ও সাত সেট কাপড় আছে যা সে নিয়মিত ব্যবহার করে। এ মহিলার কি কুরবানি ওয়াজিব হবে? জানালে কৃতার্থ হব। بسم الله الرحمن الرحيم وعليكم السلام و رحمة الله و بركاته উত্তরঃ কুরবানীর তিন দিন অর্থাৎ ১০ যিলহজ্ব ফজর থেকে ১২ ...

Read More »

বছরের শ্রেষ্ঠ ১০ দিনে করণীয় ১০ আমল

লেখক : আলী হাসান তৈয়ব | সম্পাদনা : ড. আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া আল্লাহ তা‘আলা দয়ালু। তাই তিনি আপন বান্দাদের তওবার সুযোগ দিতে ভালোবাসেন। তিনি চান বান্দারা ইবাদতের মাধ্যমে তাঁর নৈকট্য লাভ করুক। এ উদ্দেশ্যে তিনি আমাদের জন্য বছরে কিছু বরকতময় ও কল্যাণবাহী দিন রেখেছেন- যাতে আমলের সওয়াব বহুগুণে বৃদ্ধি করা হয়। আমরা পরীক্ষার দিনগুলোতে ...

Read More »

মরণোত্তর দেহ দান বা চক্ষু দান করা কি ইসলামের দৃষ্টিতে বৈধ আছে?

সম্মান্নিত মুফতী সাহেব আস’সালামু আলাইকুম প্রশ্নঃ মরণোত্তর দেহ দান বা চক্ষু দান করা কি ইসলামের দৃষ্টিতে বৈধ আছে? দয়া করে জানাবেন। بسم الله الرحمن الرحيم وعليكم السلام و رحمة الله و بركاته উত্তরঃ সংখ্যাফগরিষ্ঠ ফুকাহা এব্যপারে ঐক্যমত্য পোষন করেছেন যে, দান সহীহ হবার জন্য শর্ত হল, দানকারী দানকৃত বস্তুর প্রকৃত মালিক হতে ...

Read More »

মাদরাসার জায়গায় মসজিদ নির্মাণ করার হুকুম কি?

মুহাঃ মামুন নারায়নগন্জ, আড়াই হাজার প্রশ্নঃ আমার এলাকার এক মুরুব্বি একই স্থান থেকে এক ডিসিম যায়গা মসজিদের ও চার ডিসিম যায়গা মাদরাসার নামে ওয়াকফ করেছিলেন।(তিনি মারা গেছেন) গ্রামের সকলে মিলে মাদরাসা না করে পূর্ণ পাঁচ ডিসিমের উপর মসজিদ করেছেন। তার মানে এখন মসজিদের ওয়াকফ করা যায়গায় মাত্র একটি কাতার পরেছে। প্রশ্ন হলো উক্ত সুরাতে ঐ মসজিদটি শরয়ী মসজিদবলে ...

Read More »

মসজিদুল হারামের যমিনে (Floor) জুতা নিয়ে হাঁটার বিধান কি?

মসজিদুল হারামের যমীনে (Floor) জুতা নিয়ে হাঁটা-হাঁটি করা উচিৎ নয়। কেননা যারা মসজিদের সম্মান বুঝে না এতে তারা সুযোগ পাবে। ফলে জুতায় পানি বা ময়লা নিয়ে মসজিদে প্রবেশ করবে এবং মসজিদের পরিচ্ছন্নতা নষ্ট করে ফেলবে। বিদ্বানদের নিকট মূলনীতি হচ্ছেঃ “কল্যাণ ও ক্ষতির সংঘর্ষ যদি বরাবর হয় অথবা ক্ষতির আশংকা বেশী ...

Read More »

“কিয়ামত দিবসে আল্লাহ্‌ তা’আলা তিনি ব্যাক্তির সাথে কথা বলবেন না, তাদের দিকে তাকাবেন না, তাদেরকে পবিত্র করবেন না এবং তাদের জন্য রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি।

“কিয়ামত দিবসে আল্লাহ্‌ তা’আলা তিনি ব্যাক্তির সাথে কথা বলবেন না, তাদের দিকে তাকাবেন না, তাদেরকে পবিত্র করবেন না এবং তাদের জন্য রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি। সেই তিনি ব্যাক্তি হল – ১) পায়ের টাখনুর নীচে কাপড় ঝুলিয়ে পরিধানকারী, ২) দান করে খোটাদানকারী ৩) মিথ্যা শপথ করে পন্য বিক্রয়কারী “ তিনি (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ...

Read More »

“তাকে সর্বশেষ বিছানায় দাফন করা হল” মৃত ব্যক্তিকে লক্ষ্য করে এ কথাটি বলার হুকুম কি?

মৃত ব্যক্তিকে লক্ষ্য করে একথাটি বলা সম্পূর্ণ হারাম। যদি তুমি বল সে তার শেষ গন্তব্যে চলে গেছে, তার অর্থ হল কবরের পরে আর কিছু নেই। এ ধরণের কথা পুনরুত্থান অস্বীকার করার শামিল। ইসলামী আকীদার অন্যতম দিক হল কবরই শেষ নয়। যারা পরকালে বিশ্বাস করে না, তারাই কেবল বলে থাকে কবরই ...

Read More »

ইসলামী চিন্তাধারা, ইসলামী চিন্তাবিদ- এধরণের কথা বলা সম্পর্কে আপনার মতামত কি?

ইসলামী চিন্তাধারা বা অনুরূপ শব্দ বলা যাবে না। ইসলামকে যদি চিন্তাধারা বলি, তাহলে অর্থ দাঁড়ায় যে, এটি চিন্তাপ্রসূত বিষয় যা গ্রহণ বা বর্জন করার সম্ভাবনা রাখে। এটি অত্যন্ত নিকৃষ্ট বাক্য, যা ইসলামের শত্রুরা আমাদের ভিতরে অনুপ্রবেশ ঘটিয়েছে। অথচ আমরা জানি না। কাউকে ইসলামী চিন্তাবিদ বলাতে কোন অসুবিধা নেই। একজন মুসলিম ...

Read More »

“পরিস্থিতির ইচ্ছানুপাতে এ রকম হয়েছে” “তাকদীরের ইচ্ছানুপাতে এ রকম হয়েছে” এধরণের কথা বলার হুকুম কি?

কথাগুলো অপছন্দনীয় এবং শরীয়ত সম্মত নয়। কারণ পরিস্থিতির কোন ইচ্ছা নেই। এমনিভাবে তাকদীরেরও নিজস্ব কোন ইচ্ছা নেই। আল্লাহর ইচ্ছাতেই সবকিছু হয়। যদি বলে ‘তাকদীরের লিখন এরকম ছিল’, তাহলে কোন অসুবিধা নেই।

Read More »

“চিন্তার স্বাধীনতা” সম্পর্কে আমরা শুনে থাকি এবং পত্রিকায় পড়ে থাকি। মূলতঃ এটি আকীদা গ্রহণের স্বাধীনতার দিকে আহবান মাত্র। এ সম্পর্কে আপনার মতামত কি?

এ ব্যাপারে আমাদের কথা হল, যে ব্যক্তি আকীদার স্বাধীনতার দাবী করে এবং যে কোন দ্বীনে বিশ্বাসের অধিকার রাখে বলে মনে করে, সে কাফের। কারণ যে ব্যক্তি মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর দ্বীন ব্যতীত অন্য দ্বীন গ্রহণ করা বৈধ মনে করে, সে কাফেরে পরিণত হবে। তাকে তাওবা করতে বলা হবে। ...

Read More »